আলোর কথামালা পর্ব ২: ফ্রেনেল – এক আলোর অভিযাত্রী

গত ৭ মে, বৃহস্পতিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মাইক্রোবায়োলজি অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠিত হয়েছে আলোর কথামালার (Light Talks) দ্বিতীয় পর্ব। এই পর্বে ফরাসী পদার্থবিজ্ঞানী এবং প্রকৌশলী অগাস্টো ফ্রেনেলের জীবন এবং কাজ নিয়ে কথা বলেন বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষক সৌমিত্র রায় জয়। জাতিসংঘ ঘোষিত আন্তর্জাতিক আলোর বছর উদযাপনে বাংলাদেশ বিজ্ঞান জনপ্রিয়করণ সমিতি বছরব্যাপী যে আয়োজনগুলি করছে, আলোর কথামালা তার মধ্যে অন্যতম।

অগাস্টো ফ্রেনেল আলো নিয়ে তাঁর বেশ কিছু কাজের জন্য বিখ্যাত। তাঁর ডিজাইনকৃত ফ্রেনেলের লেন্স সাগরের পাশের বাতিঘরগুলিতে ব্যবহৃত হয়। এই লেন্সটি মূলত তৈরি করা হয়েছিল আলোর খুব তীব্র বিম তৈরি করার জন্য, যেটি লাইট হাউজ বা বাতিঘরে ব্যবহার করার মাধ্যমে সাগরে বিভিন্ন কারণে প্রাণহানির সংখ্যা কমানো যাবে।

১৮১৫ সালে আলোর তরঙ্গ তত্ত্ব নিয়ে ফ্রেনেল তাঁর প্রথম পেপার প্রকাশ করেন এবং সেখানে তিনি আলোর অপবর্তন ব্যাখ্যার চেষ্টা করেন। একই রকমভাবে আলোর ব্যতিচারও তিনি ব্যাখ্যার চেষ্টা করেন একই গাণিতিক সূত্র দিয়ে, যেটি ব্যাবহার করে তিনি অপবর্তন ব্যাখ্যা করেছিলেন, এবং পরে তিনি আলোর ব্যতিচারের সেই তাত্ত্বিক ব্যাখ্যাটিকে পরীক্ষার মাধ্যমে প্রমাণ করেন।

১৮২১ সালে ফ্রেনেল একটি পেপার প্রকাশ করেন, যেখানে তিনি আলোকে আড় তরঙ্গ (ট্রান্সভার্স ওয়েভ) হিসেবে নিশ্চয়তার সাথে দাবি করেন। ফ্রেনেল এটাও প্রমাণ করেন যে, আলোর দ্বৈত প্রতিসরণকে তরঙ্গ তত্ত্ব দিয়ে ব্যাখ্যা করা সম্ভব।

ফ্রেনেল লন্ডনের রয়্যাল সোসাইটির সদস্য নির্বাচিত হন এবং ১৮২৭ সালে রামফোর্ড মেডেল পান। খুব কম বয়সে, ১৮২৭ সালেই ৩৯ বছর বয়সে তিনে যক্ষ্মায় মারা যান।

ফ্রেনেল তাঁর কাজের মাধ্যমে তাঁর জীবদ্দশাতেই স্বীকৃতি পান সবার কাছ থেকে, বেশ ভালোভাবেই। কিন্তু ফ্রেনেল মনে করতেন, বিখ্যাত কারো কাছ থেকে কাজের স্বীকৃতি পাওয়া থেকে বেশি তৃপ্তির ব্যাপার হচ্ছে আলো নিয়ে কোন তত্ত্ব আবিষ্কার করা বা কোন হিসাবনিকাশকে পরীক্ষানিরীক্ষার মাধ্যমে প্রমাণ করা। জীবনব্যাপী সেই কাজটাই তিনি করে গেছেন।

সৌমিত্র রায় তাঁর বক্তৃতায় ফ্রেনেলের কাজ নিয়ে কথা বলার পাশাপাশি এই সংক্রান্ত আলোর তত্ত্বগুলি বেশ সহজভাবে সবার সামনে তুলে ধরেন। বক্তৃতা শেষে ছিল প্রশ্নোত্তর পর্ব। দর্শকেরা লেকচারটি নিয়ে তাদের মনে আসা বিভিন্ন প্রশ্ন করে উত্তর পেয়েছে এই অংশটিতে। প্রায় একশোর বেশি দর্শক আয়োজনটিতে উপস্থিত ছিলেন।

Comments

comments

This entry was posted in . Bookmark the permalink.